বাংলাদেশের রাজনীতিতে ‘র’ মুজিব বাহিনী থেকে শেখ হাসিনা

1
3480

অলিউল্লাহ নোমান
বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটির মূল চালক এখন কে! শেখ হাসিনা! আওয়ামী লীগ, নাকি অন্য কেউ! নাকি মুজিব বাহিনী এবং সেই বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতারা! নাকি সরকার এবং বিরোধী জোট উভয় রাজনীতি ‘র’ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত! স্বাধীন সার্বভৌমত দেশে যখন শীর্ষ রাজনৈতিক নেতা নেত্রীরা পরস্পরের রাজনীতিকে ‘র’ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এ অভিযোগ করেন তখন প্রশ্ন উঠতেই পারে। ইতোমধ্যে নির্বাচনে জয় পরাজয়ে ইন্ডিয়ান গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর নেপথ্য ভুমিকা নিয়ে পাল্টাপাল্টি খবরের শিরোনা হয়েছে। এনিয়ে ইন্ডিয়ান সাংবাদিক সুবীর ভৌমিক গত ১৯ মার্চ ‘শেখ হাসিনার ‘র’ ক্ষোভের নেপথ্যে’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন লিখেছেন। ‘বাংলা’ নামের একটি অনলাইন এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে। পরবর্তিতে বিবিসি বাংলাও তাঁকে উদ্ধৃত করে একই প্রসঙ্গের অবতারণা করেছে।
সুবীর ভৌমিকের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে অনেক তথ্য। এ প্রতিবেদনের কোন প্রতিবাদ বা ব্যাখ্যা কারো পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। এতে ধরে নেয়া যায় এই তথ্য গুলো সত্যের অপলাপ নয়। হাটে হাড়ি ভাঙ্গার সঠিক তথ্যই তিনি প্রকাশ করেছেন। নতুবা যাদের প্রসঙ্গ এসেছে তারা মুখ খুলে প্রতিবাদ করতেন।
সংবিধান অনুযায়ী জনগনের ইচ্ছা বা অভিপ্রায় অনুযায়ী রাষ্ট্র চলার কথা। সেই প্রশ্নে নাই বা গেলাম। কারন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত নির্বাচন সাধারণ মানুষের চোখ কিছুটা হলেও খুলে দিয়েছে। এই নির্বাচন দেখার পর কেউ বলতে পারবে না জনগনের ইচ্ছার প্রতিফল অনুযায়ী রাষ্ট্র চলে। যদিও ২০০১ সালের নির্বাচনে ‘র’-এর ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন খোদ শেখ হাসিনা নিজে। তাঁর এ তথ্যের সাফাই গাইতেই সুবীর ভৌমিক হাটে হাড়ি ভেঙ্গেছেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর এবং ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের পর আর কারো অভিযোগের দরকার নেই। সবকিছুই পরিস্কার মানুষের সামনে।
সুবীর ভৌমিক বলতে চেয়েছেন শেখ হাসিনার ‘র’ কানেকশনের দরকার নেই। ইন্ডিয়ান রাজনীতিকদের সাথেই রয়েছে তাঁর পারিবারিক সম্পর্ক। যেখানে রাজনৈতিক শক্তির সাথে তাঁর নিজের সম্পর্ক রয়েছে সেখানে কারো দালাল খোজার প্রশ্ন উঠতে পারে না। একটা জিনিস পরিস্কার। ইন্ডিয়ান গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ আর নতুন করে এই অধিপত্য বিস্তার করেনি। মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকেই ‘র’ রাজনৈতিক শক্তিকে দুই ভাগে বিভক্ত করে রেখেছিল। নিজেদের একটি রাজনৈতিক বলয় তৈরি করতে ইন্দিরা গান্ধির সহযোগিতায় ‘র’ তখন গঠন করেছিল মুজিব বাহিনী।
চেতনার ফেরিওয়ালার বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারীরা এখন ক্ষমতায়। মুক্তিযোদ্ধা স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বে বিশ্বাসীরা ক্ষমতায় সেটা তারা বলেন না। শব্দ দু’টি অত্যন্ত শ্রুতি মধুর । ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’ শুনতে ভালই লাগে। কিন্তু এই চেতনার নেপথ্যে রয়েছে অনেক রহস্য। কারন মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে ‘র’-এর তৈরি মুজিব বাহিনীর মতপার্থক্য ছিল শুরু থেকেই।
প্রবাসী সরকারের নিয়ন্ত্রিনে গড়ে উঠেছিল মুক্তিবাহিনী। এই বাহিনীর সর্বাধিনায়ক ছিলেন আতাউল গণি ওসমানি। তার পরেই ছিলেন ১১জন সেক্টর কমান্ডার। যাদের সবাই ছিলেন পাকিস্তান সেনা বাহিনীর প্রশিক্ষিত অফিসার। এটাই বাংলাদেশ সরকার এবং সর্বজন স্বীকৃত ও অনুমোদিত মুক্তিবাহিনী। এই বাহিনীর বাইরে প্যারালাল আরেকটি বাহিনী গোপনে তৈরি করেছিল ইন্ডিয়া। সেটার নাম ‘মুজিববাহিনী’। এই বাহিনীর গড়ে উঠেছিল সম্পুর্নভাবে ‘র’-এর তত্ত্বাবধানে। মুজিব বাহিনীর গঠন করা হয় প্রবাসী সরকারকে না জানিয়ে। অত্যন্ত গোপনে। টেনিং ও সমন্নয়ের দায়িত্বে ছিলেন ইন্ডিয়ান গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-কাউন্টার ইন্টিলিজেন্স বিভাগের প্রধান জেনারেল ওভান।
মুজিব বাহিনী প্রসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ বাহিনী বা মুক্তিবাহিনীর ডেপুটি চীপ অব স্টাফ এয়ার ভাইস মার্শাল একে খন্দকার লিখেছেন-‘১৯৭১ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশ বাহিনী বা মুক্তিবাহিনী গঠিত হয়। এই বাহিনী অস্থায়ী সরকারের দ্বারা অনুমোদিত ছিল। এই বাইরেও কিছু বাহিনী বাংলাদেশের ভেতরে গড়ে উঠেছিল বিভিন্ন ব্যাক্তির নেতৃত্বে। তারা মুক্তিবাহিনীর সাথে সমন্বয় করে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে মুজিব বাহিনীর সৃষ্টি হয়েছিল ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে। মুজিব বাহিনীর গঠনপ্রাণলী ছিল সম্পুর্ন আলাদা। এই বাহিনীর সমন্বয়কারী ও প্রশিক্ষক ছিলেন ‘র’-এর কাউন্টার ইন্ডিলিজেন্স বিভাগের মেজর জেনারেল সুজন সিং ওভান। ইন্ডিয়ার দেরাদুনে মুজিব বাহিনীকে গোপনে টেনিং দেওয়া হত। প্রথম দিকে প্রবাসী সরকার এবিষয়ে কিছুই জানত না। পরবর্তিতে বিষয়টি জানার পর প্রবাসী সরকারের পক্ষ থেকে ইন্ডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হয়। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এবিষয়ে প্রবাসী সরকারকে পাত্তাই দেয়নি’ (ভেতরে বাইরে, পৃষ্ঠা-১৩২)।
মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র, যুক্তরাজ্য থেকে প্রকাশিত ‘একুশ শতকের মহাজাগরণ, সিরাজুল আলম খান-দর্শন ও চিন্তাধারা’ শীর্ষক একটি বই বাজারে পাওয়া যায়। এই বইয়ের ৯৯ পৃষ্ঠায় জেনারেল ওভানের উদ্ধৃতি দিয়ে অধ্যায় রয়েছে ‘মুজিব বাহিনী’ শিরোনামে। এই অধ্যায় থেকে জানা যায় মুজিব বাহিনীর গঠনে ‘র’এর সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন, শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগিনা শেখ ফজলুল হক মনি, সিরাজুল আলম খান, তোফায়েল আহমদ (বর্তমানে মন্ত্রী) ও আবদুর রাজ্জাক (মরহুম আওয়ামী লীগ নেতা)। শেখ ফজলুল হক মনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট নিহত হয়েছেন। সিরাজুল আলম খান স্বাধীনতার পর থেকে পর্দার আড়ালে বহু ঘটনার নায়ক। তবে এক সময় তিনি তুখোর ছাত্রনেতা ছিলেন।
বইটিতে সিরাজুল আলম খানকে স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা হিসাবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর চিন্তা এবং ভাব দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন এমনটাই দাবী করা হয়। যদিও স্বাধীনতার পরপরই শেখ ফজলুল হক মনি এবং শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে তাঁর দূরত্ব তৈরির কথাও বলা হয় বইটিতে। তবে বইটি পাঠ করলে একটা বিষয় স্পষ্ট হয় শেখ মুুজিবুর রহমানের অজান্তেই সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বে গঠিত হয়েছিল ‘নিউক্লিয়াস’। পরবর্তিতে এই সংগঠনটি স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। এই গোপন সংগঠনের সদস্যরাই মূলত বেশি যোগ দিয়েছিল মুজিব বাহিনীতে। এই বাহিনীর তৎকালীন দ্বিতীয় সারির নেতা ছিলেন হাসানুল হক ইনু।
আওয়ামী লীগের যে অংশটি বর্তমানে রাজনীতি ও সরকার নিয়ন্ত্রণ করছে সেটা মুজিব বাহিনীরই আধুনিক সংস্করণ। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের পর থেকে শেখ হাসিনা ইন্ডিয়ায় রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ফিরেছেন ১৯৮১ সালের মে মাসে। ‘র’-এর প্রধানের বাড়ির পাশাপাশি রাখা হয়েছিল তাঁকে।
মুজিব বাহিনী গঠনের উৎস পাওয়া যায় ডা. কালিদাস বৈদ্যের লেখায়। কলিকাতা থেকে প্রকাশিত কালিদাস বৈদ্যের লেখা বইটির নাম হচ্ছে- বাঙ্গালির মুক্তিযুদ্ধের অন্তরালে শেখ মুজিব। এ বইয়ের ১৫৮ পৃষ্ঠায় শুরু হয়েছে ‘মুজিব বাহিনী’ নামে একটি অধ্যায়। এখানে বলা হয়েছে মুজিব বাহিনী কালিদাস বৈদ্য এবং চিত্ত রঞ্জন সূতারের ব্রেইন চাইল্ড। বইটির এ অধ্যায়ের শুরুতে ডা. কালিদাস বৈদ্য দাবী করেন মুক্তি বাহিনীর প্যারালাল আরেকটি বাহিনী গঠন করতে তিনি এবং চিত্তরঞ্জন সূতার আলোচনা করেন। তারা ধারণা করেছিলেন মুক্তিবাহিনীর মাধ্যমে দেশ স্বাধীন হলেও তাদের আসল উদ্দেশ্য হাসিল হবে না। তাদের আসল উদ্দেশ্য ছিল পশ্চিমবঙ্গের হিন্দু সংস্কৃতি বাংলাদেশের মুসলমানদের উপর চাপিয়ে দেওয়া। তারা মনে করতেন মুক্তিবাহিনীর নেতৃত্বে যারা রয়েছেন তারা পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর ট্রেনিংপ্রাপ্ত। মুসলমানদের সংস্কৃতি দ্বারা প্রভাবিত এই বাহিনী। সুতরাং তথাকথিত অসাম্প্রদায়িকতার নামে হিন্দু সংস্কৃতি ভাব প্রসূত পৃথক বাহিনী দরকার। যাদের হাতে থাকবে মূল ক্ষমতা।
এ অধ্যায়ের প্রথম প্যারার শেষাংশে উল্লেখ করা হয়-’চিত্তবাবু ও আমি গোপন আলোচনায় বসি। সেই ভয়াবহ পরিস্থিতি কিভাবে মোকাবেলা করা যায় সেই পথের অনুসন্ধানই ছিল আমাদের মূল আলোচ্য বিষয়। সেদিনের আলোচনায় দুটি পথের কথা আমরা চিন্তা করি। তার প্রথমটি হল হিন্দু ছেলেদের আলাদাভাবে গোপনে ট্রেনিং-এর ব্যবস্থা করা। আর দ্বিতীয়টি হল মুক্তিবাহিনী ছাড়াও আরও একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বাহিনী গঠন করা। তারা একদিকে যেমন উন্নত ধরনের সামরিক শিক্ষা পাবে তেমিন অন্যদিকে অসাম্প্রদায়িক হওয়ার জন্য তাদের বাস্তব শিক্ষা দিতে হবে। এই অসাম্প্রদায়িক বাহিনী বাংলাদেশের প্রকৃত সামরিক ক্ষমতা তাদের হাতে নিবে। বাংলাদেশকে তারাই চালাবে সাম্প্রদায়িক মুক্তিবাহিনীর ক্ষমতা খর্ব করে।’ কালিদাস বৈদ্য বাবু প্রসঙ্গটি তিনি বর্ণনা করেছেন মুজিব বাহিনী গঠনের নেপথ্য কাহিনী বলতে গিয়ে।
এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেছেন-‘বৈঠক শেষে চিত্ত বাবু প্রস্তাব করেন, এই বাহিনীর নাম হবে মুজিব বাহিনী। সঙ্গে সঙ্গে আমি তার স্বীকৃতি জানাই। ওদিন আরো আলোচনা হয় মুজিব বাহিনীর নেতৃত্ব ও কতৃত্ব থাকবে ৪ জন ছাত্র নেতার হাতে।’
আলোচনায় তারা সিদ্ধান্ত নেন প্রথমে সিরাজুল আলম খানের সম্মতি পেলেই ৪ ছাত্র নেতার সমর্থন পাওয়া সহজ হবে। তারা আরো ধারণা করলেন শেখ ফজলুল হক মনি কখনো তাঁর মামার নামে গঠিত বাহিনীর বিরোধীতা করবে না। শেখ ফজলুল হক মনি এবং সিরাজুল আলম খান একমত হলে আবদুর রাজ্জাক ও তোফায়েল আহমদ কোন বিরোধীতা করবে না। তাদের আলোচনায় সিদ্ধান্ত হয় চিত্ত বাবু ওই চার ছাত্র নেতার সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবেন। বইটির বর্ণনায় বলা হয়, চিত্তবাবু বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনার এক ফাঁকে প্রসঙ্গটি সিরাজুল আলম খানের সামনে উপস্থাপন করেন। দেরি না করে সিরাজুল আলম খান তা লুফে নেন। তারা টার্গেট অনুযায়ী সিরাজুল আলম খানকে ব্যবহার করে বাকী ৩জনের সম্মতি আদায় করেন।
কালীদাস বৈদ্যের বর্ণনায় আরো উল্লেখ করা হয়, ওই সিদ্ধানের বিষয়টি নির্ভরযোগ্য ব্যক্তির মাধ্যমে পরের দিনই ইন্ডিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধির কাছে পৌছে দেয়া হয়। তিনিও শুনে সঙ্গে সঙ্গে রাজি হয়ে যান। তারপরই জেনালে ওভানের মাধ্যমে তাড়াতাড়ি গোপনে মুজিব বাহিনী গঠন ও ট্রেনিং শুরু হয়ে যায়। এ বাহিনী গঠনের নেপথ্য কারন হিসাবে আরো কিছু বিষয় খোলাসা করেছেন। তাদের লক্ষ্য ছিল মুজিব বাহিনী ও মুক্তিবাহিনী নিজেরা রেষারেষি করতে থাকবে। সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের সাথেও মতানৈক্য চলবে। হিন্দু জোয়ানদের দিয়ে আরো একটি বাহিনী গঠনের উদ্যোগ নিবে তারা। এই বাহিনী হবে তখন মধ্যশক্তি বাহিনী। তাদের কথাই হবে তখন শেষ কথা।
বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতি ও চেতনার শ্লোগানের সাথে বৈদ্য বাবুদের সেদিনের চিন্তা হুবহু মিলে যায়। ‘র’-এর রাজনৈতিক খেলার যে বর্ণনা শেখ হাসিনা দিয়েছেন লক্ষ্মিপুরের জনসভায় সেটা আজকে নতুন কিছু নয়। স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরুর প্রক্কালেই ‘র’ রাজনীতির একটি অংশ নিয়ন্ত্রণ শুরু করে। যে খেলার মাধ্যমে নিউক্লিয়ার্স ও স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ গঠন করা হয়েছি। সেই খেলার ধারাবাহিকতায় গঠিত হয় মুজিব বাহিনী। অভিযোগ এবং পাল্টা অভিযোগ যাই চলুক না কেন সুবীর ভৌমিকের বর্ণায় উঠে এসেছে ‘র’ কৌশলে পক্ষ বিপক্ষ পুরো রাজনীতিটাই নিয়ন্ত্রণ করছে।

মুজিব বাহিনী গঠন ও টেনিং নিয়ে কালীদাস বৈদ্য এবং এ কে খন্দকারের লেখায় হুবহু মিল পাওয়া যায়। এছাড়া সিরাজুল আলম খানকে নিয়ে লেখা বইয়েও একই তথ্য উল্লেখ রয়েছে। সুতরাং বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ন্ত্রণের ইন্ডিয়ান গোয়েন্দা সংস্থার প্রচেষ্টা নুতন কিছু নয়। এটা অতীতের ধারাবাহিকাত মাত্র। নিকট অতীতেও রাজনীতিতে ‘র‘-এর ভুমিকা নিয়ে এক তরফা অভিযোগ করা হত। এখন উভয় দিকেই তীর ছোড়া হচ্ছে। অতীত এবং বর্তমানের ব্যবধানটা এখানেই।

1 COMMENT

  1. মুজিব বাহিনী এবং সেই বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতারা!-নয়
    ‘র’ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত- হতে পারে
    নির্বাচনে জয় পরাজয়ে ইন্ডিয়ান গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর নেপথ্য ভুমিকা –থাকতে পারে
    কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এবিষয়ে প্রবাসী সরকারকে পাত্তাই দেয়নি’-টিক নয়
    হিন্দু ছেলেদের আলাদাভাবে গোপনে ট্রেনিং-এর ব্যবস্থা করা।–ভুল
    মুজিব বাহিনী ও মুক্তিবাহিনী –দেশের ভিতরে এক সঙ্গে কাজ করেছে
    মুজিব বাহিনী-একটা গেরিলা বাহিনি দিরগ কালিন জুদ্দের জন্য
    মুক্তিবাহিনী-নিয়মিত জুদ্দের জন্যে ভারতিয় সেনা করমকরতাদের সাহাজ্জে সেকটর কমনদের দারা পরিচালিত
    ইন্দিরা গান্ধী বাংলা দেশের হিতেশি চিলএন। তবে কিছু পেতে কিছু দিতে হয়।
    একন হাচিনা রাজনীতি কারনে ‘র’ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত- হতে পারে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here